প্রসঙ্গঃ করোনা রোধে আজানের শব্দ পরিবর্তন করে ঘরে নামায আদায়ের কথা বলা যাবে কি না

প্রশ্নঃ
হযরত, ধর্মমন্ত্রনায় কতৃক ঘোষণা এসেছে, নামায নিজ নিজ বাড়িতে পড়ার জন্য ৷ ওয়াক্তিয়া নামাযে ৫ ও জুমআয় ১০ জনে যেন নামায আদায় করে শুধু মসজিদে জামাত চালু রাখা হয় ৷ আমার জানার বিষয় হল, এক্ষেত্রে আযানের বাক্য পরিবর্তন করে ঘরে নামায আদায় করার কথা কি বলা যাবে? সাহাবা (রা.) এবং তাবে-তাবেয়ীনগনের যুগে কোন মহামারীর কারনে এমন হয়েছে কিনা?

উত্তরঃ
করোনা সংক্রমণ রোধে নামায নিজ ঘরে পড়া শরিয়তসম্মত ৷ এবং মহামারী বা কোন বিপদের কারণে
আজানের শেষে বা ‘হাইয়াআলাস সালাহ’ এর স্থলে ‘ছল্লু ফী রিহালিকুম’ অথবা ছল্লু ফী বুয়ূতিকুম, তথা ‘তোমারা ঘরে নামায পড়’ বলে আহবান করার প্রমাণ হাদীসে পাওয়া যায়। যেমন:

عن نَافِعٌ، قَالَ: أَذَّنَ ابْنُ عُمَرَ فِي لَيْلَةٍ بَارِدَةٍ بِضَجْنَانَ، ثُمَّ قَالَ: صَلُّوا فِي رِحَالِكُمْ، فَأَخْبَرَنَا أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ كَانَ يَأْمُرُ مُؤَذِّنًا يُؤَذِّنُ، ثُمَّ يَقُولُ عَلَى إِثْرِهِ: «أَلاَ صَلُّوا فِي الرِّحَالِ» فِي اللَّيْلَةِ البَارِدَةِ، أَوِ المَطِيرَةِ فِي السَّفَرِ

নাফি‘ (রহ.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, প্রচন্ড এক শীতের রাতে ইবনু ‘উমার (রাযি.) যাজনান নামক স্থানে আযান দিলেন। অতঃপর তিনি ঘোষণা করলেনঃ তোমরা আবাস স্থলেই সালাত আদায় করে নাও। পরে তিনি আমাদের জানালেন যে, আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সফরের অবস্থায় বৃষ্টি অথবা তীব্র শীতের রাতে মুয়ায্যিনকে আযান দিতে বললেন এবং সাথে সাথে এ কথাও ঘোষণা করতে বললেন যে, তোমরা নিজ বাসস্থলে সালাত আদায় কর।
-সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৬৩২ ৷
সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-৬৯৭ ৷

عَنْ عَبْدِ اللهِ بْنِ عَبَّاسٍ ، أَنَّهُ قَالَ لِمُؤَذِّنِهِ فِي يَوْمٍ مَطِيرٍ : ” إِذَا قُلْتَ : أَشْهَدُ أَنْ لَا إِلَهَ إِلَّا اللهُ ، أَشْهَدُ أَنَّ مُحَمَّدًا رَسُولُ اللهِ ، فَلَا تَقُلْ : حَيَّ عَلَى الصَّلَاةِ ، قُلْ : صَلُّوا فِي بُيُوتِكُمْ ” ، قَالَ : فَكَأَنَّ النَّاسَ اسْتَنْكَرُوا ذَاكَ ، فَقَالَ: ” أَتَعْجَبُونَ مِنْ ذَا ؟! ، قَدْ فَعَلَ ذَا مَنْ هُوَ خَيْرٌ مِنِّي

আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, এক প্রচুর বৃষ্টিপাতের দিন তিনি তাঁর মুয়াজ্জিনকে বললেন, যখন তুমি ‘আশহাদু আল্লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ,‘আশহাদু আন্নাহ মুহাম্মাদার রাসুল্লাহ’ বল, হাইয়াআলাস সালাহ বলবে না ৷ বরং তুমি বলবে, ‘ছল্লু ফি বুয়ূতিকুম’ বা তোমরা ঘরে নামাজ আদায় করো।
”যখন মোয়াজ্জিন এটা বললেন, তখন লোকেরা যেন এটা অপছন্দ করল। তখন আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস তাদের লক্ষ্য করে বললেন, তোমরা এটা অশ্চার্যবোধ করছো? অথচ আমার চেয়ে উত্তম যিনি, হজরত মুহাম্মদ (সা.) তিনিও বরং এমনটি করেছেন।
-সহিহ মুসলিম, হাদীস নং ৬৯৯ ৷
সহিহ বুখারী হাদীস নং ৮৫৯ ৷

সুতরাং করোনার মত মরণঘাতী রোগ মহামারী আকার ধারণ করার কারণে, মসজিদে আজানের সময় ‘হাইয়াআলাস সালাহ’ এর স্থলে অথবা আযান শেষে ‘ছল্লু ফী বুয়ূতিকুম’ তথা ‘ঘরে নামায পড়ুন’ বলে মুআজ্জিন ঘোষণা দিতে পারবে। অথবা সাধারন নিয়মে আযান দিয়ে আযানের পর বাংলা ভাষায় এঘোষণা দিতে পারবে, “নামায নিজ নিজ ঘরে পড়ে নিন” ৷

-ফতহুল বারী, ২/১১৩; হাশিয়াতুত তাহতাবী আলাল মারাকী, ২৯৭; শরহে মুসলিম লিন নববী, ৫/২০৭ ৷

উত্তর প্রদানে
মুফতী মেরাজ তাহসীন
মুফতীঃ জামিয়া দারুল উলুম দেবগ্রাম
ব্রাহ্মণবাড়ীয়া ৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *